আমেরিকানরা তাদের পোষা কুকুরকেও প্লেনে উঠাচ্ছে। কিন্তু যে সব আফগানরা তালেবান জংগীদের নির্মূলে আমেরিকাকে সাহায্য করেছিল জীবনের ঝুঁকি নিয়েও,তাদেরকে প্লেনে উঠাচ্ছে না। কাউকে কাউকে গুলি করে মারছে।
আমেরিকানরা তাদের পোষা কুকুরকেও প্লেনে উঠাচ্ছে। কিন্তু যে সব আফগানরা তালেবান জংগীদের নির্মূলে আমেরিকাকে সাহায্য করেছিল জীবনের ঝুঁকি নিয়েও,তাদেরকে প্লেনে উঠাচ্ছে না। কাউকে কাউকে গুলি করে মারছে।
অথচ কিছু বোকা আফগান মুসলমান তাঁদের দেশ এবং ইসলাম রক্ষার নামে সন্ত্রাসী আল কায়েদায় যোগ দিয়েছিল। কেউবা যোগ দিয়েছিল সন্ত্রাসী ও বিশ্বের প্রধান আফিম ও হিরোইন চোরাকারবারী তালেবানদের দলে। এদের বাংলাদেশি চেলারা ইসলাম রক্ষার নামে কখনো হরকাতুল জিহাদে,কখনো বা জেএমবিতে কিংবা আনসার আল ইসলামে যোগ দেয়।
অথচ পবিত্র ইসলাম শান্তির ধর্ম। আমাদের প্রিয় নবীজি অমুসলিমদের নিরাপত্তা এবং ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে শিক্ষা দিয়েছেন।
আফগানিস্তান থেকে রাশিয়া বিতারিত হওয়ার পরে আমেরিকা এসেছিল। তারাও বিতারিত হলো পাকিস্তান,চায়না এবং রাশিয়ার পরোক্ষ এবং প্রত্যক্ষ সমর্থনে। আফগানিস্তানে  এবার হয়তো আসবে অন্য কোন আঞ্চলিক কিংবা পরাশক্তি। পরাশক্তিগুলো একটা ছবির মতো সুন্দর দেশকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে? 
আমি চাই আফগানিস্তানে দেশপ্রেমিক আফগানদেরই জয় হোক,সন্ত্রাসী তালেবান কিংবা পরাশক্তির অন্য কোন পা চাটা কুকুরদের না। স্থায়ী শান্তি ফিরে আসুক আফগানিস্তানে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here